তালেবান শাসিত আফগানিস্তানে অনেক

তালেবান শাসিত আফগানিস্তানে অনেক , নারীর জীবন বদলে গেছে। তালেবান ক্ষমতায় আসার ছয় মাস আগেও নারীরা রাজধানী

কাবুল এবং অন্যান্য শহরগুলোকে চিনতেন। শ্রেণীকক্ষে ও কর্মক্ষেত্রে অবাধ বিচরণ ছিল। কিন্তু ছয় মাসে চেনা জগৎটা অপরিচিত হয়ে

গেছে। এই নারীদের দেশ আফগানিস্তান। কিন্তু সেখানে কিছুই তাদের নিজেদের বলে মনে হয় না।সমাজে সক্রিয় ভূমিকা পালনকারী

অনেক নারীকে এখন ঘরে লুকিয়ে থাকতে হয়। যে মহিলা নিজের ব্যবসা শুরু করার স্বপ্ন দেখেছিলেন, যে মহিলা উচ্চতর ডিগ্রি নেওয়ার

পরিকল্পনা করেছিলেন, সেই মহিলারা এখন বেঁচে থাকার লড়াই করছেন।তালেবান শাসনামলে আফগান নারীদের জীবনের প্রতিটি দিকই

এখন বাধার মধ্যে সীমাবদ্ধ। তালেবান ক্ষমতা দখলের ছয় মাস পরও আফগান নারীরা নারী অধিকার রক্ষার প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন

দেখেনি। মেয়েদের এবং মহিলাদের জন্য মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দরজা এখনও বন্ধ রয়েছে।তালেবানদের দৃষ্টি এড়াতে পার্লারের ছবি কালো

করা হয়েছিলতালেবানদের দৃষ্টি এড়াতে পার্লারের ছবিগুলো কালো রঙে ঢেকে দেওয়া হয়েছেসমুদ্র থেকে একের পর এক আফগান

তালেবান শাসিত আফগানিস্তানে অনেক

নারীদের মুখ উধাও হয়ে যাচ্ছে। একটা ছোট উদাহরণ দেই। গত বছরের আগস্টে তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর রাতারাতি একটি পার্লার বদলে যায়। জানালায় নারীদের ছবি ও পোস্টার ছিল। তালেবানদের দৃষ্টি এড়াতে ছবিগুলো কালো আঁকা হয়েছে। সেই ছবিগুলির মতো, সেই সময় থেকে অনেক আফগান নারীর জীবন অন্ধকারে ঢেকে গেছে।টিভি নাটকে নারীদের নিপুণ অভিনয় দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন দর্শকরা। তারাও থেমে গেছে। গত নভেম্বরে টিভি নাটকে নারীদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করা হয়।সময়ে সময়ে যাতায়াতের পথ প্রায় বন্ধ। গত মাসে, ট্যাক্সি ড্রাইভারদের পুরুষ অভিভাবক ছাড়া মহিলা যাত্রীদের 45 মাইলের বেশি দূরে নিয়ে যেতে নিষেধ করা হয়েছিল। দীর্ঘ পথে একা হাঁটা বন্ধ। বাড়িতে শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে নিকটতম প্রতিবেশীর কাছে যেতে নারীদের প্রায়ই বাধার সম্মুখীন হতে হয়।ওয়াশিংটন পোস্ট এমন চার নারীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে। চার মাস ধরে ওয়াশিংটন পোস্ট নিয়মিত ফোন কল এবং

হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে এই নারীদের

হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে এই নারীদের জীবন সম্পর্কে জেনেছে। তারা সবাই সংখ্যালঘু শিয়া সম্প্রদায়ের। শিয়া সম্প্রদায় দীর্ঘদিন ধরে তালেবানদের দ্বারা নির্যাতিত। সংখ্যালঘু শিয়া সম্প্রদায়ের মহিলাদের জন্য শিক্ষা ও কর্মসংস্থানের সুযোগ গত দুই দশকে প্রসারিত হয়েছে। কিন্তু তালেবানদের প্রত্যাবর্তনের ফলে তারা এখন সর্বস্ব হারানোর আশঙ্কায় রয়েছে।বিপদের ভয়ে, এই চার মহিলা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওয়াশিংটন পোস্টের সাথে কথা বলতে রাজি হন। তাদের মধ্যে কাবুলের বাসিন্দা সাজিদা, কে (নামের আদ্যক্ষর) এবং পাহলাওয়ান। আলিয়া উত্তর আফগানিস্তানের একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন।ছাত্রদের কথা ভেবে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে আসেন
গত আগস্টে তালেবান ক্ষমতা দখলের পর অনেক নারী দেশ ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেছিলেন। উত্তর আফগান শহর মাজার-ই-শরীফের পতনের এক সপ্তাহ পরে, আলিয়া, 26 বছর বয়সী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, মনে করেন যে তার অতীতের রঙিন জীবন হঠাৎ বিবর্ণ হয়ে গেছে।এ সময় আলিয়া ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেন, “আমি অপেক্ষা করছি। আমাদের কী হবে তা জানার জন্য আমরা

আরো পড়ুন 

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.